ফিলিপাইনে “মিসেস ট্যুরিজম গ্লোব” জয় করলেন ঐশী”

0
882

ফিলিপাইনে “মিসেস ট্যুরিজম গ্লোব” জয় করলেন “ফারহানা আফরিন ঐশী”

২৮ অক্টোবর ফিলিপাইনের মেনিলাতে হয়ে গেল “মিসেস ট্যুরিজ্ম” এর ওয়ার্ল্ড ফাইনাল। ২৬টি দেশের সাথে লাল সবুজ পতাকা হাতে বাংলাদেশ থেকে অংশ নিয়েছেন “ফারহানা আফরিন ঐশী”। গ্র্যান্ড করনেশন নাইটে “মিসেস ট্যুরিজম গ্লোব” সহ মোট ৬টি টাইটেল জিতে নেন ২২ বছরের সপ্নবাজ ঐশী।

অন্যান্য টাইটেল গুলো হলো “মিসেস বেরি গ্লুটা” (Mrs Berry GLUTA) “মিসেস নিক্স ইন্সস্টিটিউট (Mrs Nix Institute of Beauty)”, “বেস্ট ইন ফোরাম (Best In Forum)”, “ডার্লিং অফ দি প্রেস (Darling of the Press)”, “মিসেস ফেয়ারী হোয়াইট (Mrs Fairy White)” অপূর্ব ডট কম এর আয়জনে এবার প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ থেকে “মিসেস টুরিজম বাংলাদেশ-২০১৯” নির্বাচিত হয়ে, “ফারহানা আফরিন ঐশী”, অংশ নিয়েছেন “মিসেস টুরিজম” এর আন্তরজাতিক আসরে। এই আয়জনে বাংলাদেশ এর সাথে আর অংশ নিয়েছেন, অস্ট্রেলিয়া, চীন, কানাডা, ভারত, জাপান, কোরিয়া, নিউজিল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, তাইওয়ান, ফিলিপাইন, শ্রীলঙ্কা সহ ২৬ টি দেশ।

মিসেস টুরিজম বাংলাদেশ এর প্রেসিডেন্ট অপূর্ব আব্দুল লতিফ “ফারহানা আফরিন ঐশী” কে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, আমাদের দেশের অন্যতম সম্ভাবনাময়, আমাদের টুরিজম সেক্টর। আমাদের আছে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত – কক্সবাজার, সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ বন- সুন্দরবন। আমাদের প্রধান মন্ত্রী স্বয়ং বাংলাদেশের টুরিজম নিয়ে অনেক কাজ করছেন। এই প্রেক্ষাপটে বিশ্বের দরবারে আমাদের টুরিজম আরও ব্যপক পরিসরে পরিচিত করতে আমাদের এই প্রচেষ্টা। ঐশীর সাফল্য আমাদের যাত্রাকে বেগবান করলো। আশাকরি সকলের সহযোগিতা থাকলে বিশ্বের বুকে বাংলাদেশকে তুলে ধরার এই যাত্রা নিয়মিত ভাবে অব্যহত থাকবে।

গত ১৫ অক্টোবর, লাল সবুজ পতাকা হাতে বাংলাদেশের সিমানা পাড় হন ২২ বছরের সপ্নবাজ ঐশী। ছোট বেলা থেকেই ঐশী নাচ-গান করে বর হয়েছেন। পাশাপাশি লেখালেখি এবং ছবি আঁকাতেও তার সমান আগ্রহ। নজরকাড়া সুন্দরি এবং মেধাবী এই তরুনীর স্বপ্ন পৃথিবীটা ঘুরে দেখা, গান গেয়ে মানুষের হৃদয় জয় করা এবং মানুষের প্রয়োজনে পাশে থাকা। ঐশীর মায়ের বাড়ি মুন্সি গঞ্জে, এবং বাবার বাড়ি ফারিদপুর, তার জন্ম ঢাকায়। তার মা ভালবাসতেন নাচ, আর বাবা গান। তাই ছোটবেলায় পড়াশোনার সাথে সমানতালে চলেছে নাচ-গানের তালিম। সেই স্কুলে থাকতেই স্টেজ পারফরমেন্স শুরু হয়। খুব অল্প সময়ে ডাক পরে কর্পোরেট প্রোগ্রাম গুলোতে। দর্শক শ্রোতার প্রশংসা আর ভালবাসাই তার এগিয়ে যাওয়ার মুল প্রেরনা।

নাচ-গানের অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ার সুবাদে, তাকে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যেতে হয়। সভাবতই দেশ ভ্রমনের প্রতি আলাদা একটা আগ্রহ জন্মায়। এরই মধ্যে নিজের দেশের পাশাপাশি আরও ঘুরে এসেছেন মালশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, দুবাই, ভারত সহ অনেক দেশ। আর এবার ফিলিপাইনের ম্যানিলাতে বাংলাদেশের হয়ে অংশ নিলেন “মিসেস টুরিসম” পেজেন্টে। তিনি বলেন, “এতগুলো দেশের মাঝে বাংলাদেশকে তুলে ধরতে পেরে আমি গর্বিত। ট্যালেন্ট রাউন্ডে হৃদয়খানের মিউজিক করা আমার গান আয়োজকদের মন কেড়েছে। অনন্যা সেগমেন্ট গুলতেও প্রশংসা পেয়েছি, করনেশন নাইটের এই ফলাফল সপ্নের মত লাগছে। দেশের প্রতি দায়িত্ত আরও বেরে গেলো। সকলের কাছে দোয়া আর ভালবাসা চাই।”