শীতে শরীর গরম রাখতে খাবেন যে সব খাবার

0
48

দেশে এখন চলছে হাড় কাঁপানো শীত। যে কারণে গরম কাপড় সব সময় জড়িয়ে রাখতেই হয়। তবে এমন শীতেও শরীর তাপমার্তা স্বাভাবিক রাখতে খেতে পারেন যে সব খাবার। আপেল, স্যুপ, মধু এবং বাদামসহ খাবেন যে সব খাবার।

জেনে নিন কোন কোন খাবারে শীতকালেও শরীর গরম থাকে:

মধু:

শীতে অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, সর্দি, কাশি ইত্যাদির দেখা দেয়। আর এ বিরুদ্ধে লড়তে অনন্য এক উপাদান মধু। মিষ্টিজাতীয় খাবার হলেও মধুতে নেই বাড়তি ক্যালরির ঝামেলা। এ ছাড়া শরীর গরম রাখতেও বেশ উপকারী।

আপেল:

শীতে আপেল কোন জুড়ি নেই। কেননা আপেলে রয়েছে প্রায় ৪.৪ গ্রাম ফাইবার। আপেলের স্যলুবল এবং ইনস্যলুবল ফাইবার দুটোই আমাদের দেহের উষ্ণতা ধরে রাখতে সক্ষম। এ ছাড়াও আপেলে রয়েছে ৮৬% পানি যার ফলে আমরা শীতে কম পানি পান করলেও আমাদের দেহকে সঠিকভাবে হাইড্রেট রাখতে সহায়তা করবে।

স্যুপ:

শীত স্যুপ পানের করো জুরি সেই। শীতকালে স্যুপ পানের ফলে উষ্ণতার পাশাপাশি স্বাদ ও স্বাস্থ্য দুটোর প্রতিই নজর দেওয়া যায়। বিশেষ করে তা যদি কুমড়োর স্যুপ হয়ে থাকে। শরীর গরম রাখতে শীতের সন্ধ্যায় খেতে পারেন স্যুপ জাতীয় খাবার।

মরিচ:

শীতকালে খাবারে সাথে খেতে পারেন মরিচ। মরিচে রয়েছে ভিটামিন সি, যা শরীর থেকে ঠাণ্ডার অনুভূতি দূর করে। সর্দি এবং কফ কমায়। মরিচের ঝাল একটু বেশি দিয়ে খাবার রান্না করে খেয়ে দেখুন, শীত পালিয়ে যাবে।

রসুন:

শীতে সর্দি, কাশি ও গলা ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে কার্যকরী রসুন। পাশাপাশি শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে। প্রতিদিন তিন, চার কোয়া রসুন সরাসরি বা রান্নায় ব্যবহার করে খেতে পারেন।

মিষ্টি আলু:

মিষ্টি আলু শীতকালে অন্যতম একটি সবজী। শীতকালের এই সবজিটিরও রয়েছে শীত দূর করার ক্ষমতা। ফাইবার, ভিটামিন সি, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, আয়রন সমৃদ্ধ মিষ্টি আলুকে বলা হয় সুপারফুড, যার রয়েছে দেহকে নানা ধরনের রোগ থেকে মুক্ত রাখার পাশাপাশি শীত তাড়ানোর বিশেষ ক্ষমতা।

আদা:

আদা শরীরের অন্যতম একটি উপকারি উপাদান। শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায় আদা। তাই শীতে শরীর সুস্থ রাখার উপযুক্ত উপায় এটি। পাশাপাশি সর্দি-কাশির নিরাময়েও সহায়ক। স্যুপ বা অন্যান্য খাবারের সঙ্গে মিশিয়ে আদা খেতে পারেন। কাঁচাও খাওয়া যায়। এ ছাড়া শীতের সময় আদার চা খেলে শরীর গরম থাকে।

বাদাম:

শরীর গরম রাখতে বিভিন্ন জাতের বাদাম যেমন, চিনাবাদাম, আখরোট, কাঠবাদাম ইত্যাদি ভালো কোলেস্টেরল, ভিটামিন, ফাইবার ও ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিডের সবচেয়ে ভালো উৎস। গরমজাতীয় খাবার বলে শীতে স্যাকস হিসেবে বাদাম খেতে পারেন।

দারুচিনি:

দারুচিনি শরীরের তাপমাত্রা কমে যাওয়া থেকে রক্ষা করে। ফলে এই মসলা বেশ উপকারী। আলাদা স্বাদ আনতে স্যুপ, রান্না করা খাবার, সালাদের সঙ্গে দারুচিনি মিশিয়ে নিতে পারেন। এ ছাড়া চায়ের সঙ্গেও মেশাতে পারেন।