পর্যটনে নারী উদ্যোক্তা রোকসানা

0
444

‘দি ট্যুরিজম ভয়েস’ পত্রিকা সব সময় পর্যটন শিল্পের উন্নয়নে এবং শিল্পের সাথে যুক্ত কিছু ব্যতিক্রমী মানুষকে তুলে ধরার প্রাণান্তর চেষ্টা করে এবং সেই মানুষগুলোর পর্যটন উদ্যোক্তা হয়ে ওঠার স্বপ্ন ও লড়াই কে সম্মান জানিয়ে তাদের পাশে থাকার চেষ্টা করে। আজ তুলে ধরবো তেমনি একজন রন্ধন শিল্পী, ফুড ক্যাটারিং ব্যবসায়ী এবং পর্যটন উদ্যোক্তা রোকসানা কবির এর পথচলার গল্প।

রোকসানা কবির ১৯৮৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর লক্ষিপুর জেলায় জন্ম করেন । বাবা হুমায়ুন কবির একজন অবসর প্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা। মা শাহানাজ কবির গৃহিণী। তিন ভাই বোনের মধ্যে রোকসানা ২য়। বড় ভাই চার্টার্ড একাউন্ট্যান্ট । ছোট ভাই জনাতা ব্যাকে সিনিযর অফিসার হিসেবে কর্মরত আছেন। ছোট বেলা থেকেই রোকসানা ছিল ডানপিটে ও দুস্ট স্বভাবের। শৈশব পেরিয়ে কৈশোরে পদার্পণ করতে না করতেই রান্না বান্নার শখ পেয়ে বসে তার। মাকে রান্নার কাজে সাহায্য করতেন, তার মায়ের হাতের রান্না অসাধারন। স্কুল জীবনে মা যখন অসুস্থ থাকতেন তখন তিনিই রান্না করতেন শখ করে। বাবার চাকরির সুবাদে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ঘুরে বেড়িয়েছেন এবং বিভিন্ন স্কুলে পড়াশুনা করার সুযোগ পেয়েছেন। গাজীপুর এর রাজেন্দ্রপুর হাই স্কুল থেকে ২০০৪ সালে এস.এস.সি পাস করেন এবং ২০০৬ সালে মিরপুর গার্লস আইডিয়াল ল্যাবরেটরি ইন্স্টিটিউট থেকে এইচ, এস, সি পাশ করেন। এরপর সরকারি তিতুমির কলেজ থেকে বিবিএস পাশ করেন ২০১০ সালে।

২০১০ সালে বাংলাদেশ নৌবাহিনী পরিবার কল্যাণ সংঘ থেকে ৬ মাস মেয়াদী হস্তশিল্প প্রশিক্ষণ গ্রহন করেন এবং সাফল্যের সাথে উত্তীর্ণ হন। লালমাটিয়া মহিলা কলেজ থেকে ম্যানেজমেন্টের উপর এমবিএস পাস করেন ২০১৪ সালে। লেখাপড়া শেষ করে বাংলালিংক এর কল সেন্টারে জব করেন বেশ কিছুদিন করার পর ছেড়ে দেন। ২০১৬ সালে শেখ ফজিলাতুন্নেসা থেকে আবারও ৬ মাস মেয়াদী সেলাই প্রশিক্ষন নেন। এত কিছুর পর ও রোকসানা রান্নাটাকে চালিয়ে গিয়েছেন কারণ রান্নার প্রতি মায়া ছাড়তে পারেন নি।

এতপর ২০১৭ সালে ইউসেফ থেকে ৬ মাস মেয়াদী বেকিং কোর্সের মাধ্যমে NTVQF level_1 সম্পন করেন এবং ২০১৮ সালে Level _ 2 সম্পন করেন। কোর্স চলাকালিন সময় Dream food Station নামে একটি হোমমেড ফুড বিজনেস শুরু করেন এবং শুরুতেই বেশ ভালো সাড়া পেয়ে যান। রোকসানার স্বপ্ন একজন সফল নারি উদ্যোক্তা হবার, পাশাপাশি একজন Youtuber হবার, তারসাথে নিজের একটা ট্রেইনিং সেন্টার করার ।

রান্নার বিষয়ে নিজের জানার পরিধি বাড়ানোর জন্য ২০১৮ সালের শেষের দিকে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন এর NHTTI থেকে Food & Beverage Production এর উপর শর্ট কোর্স করেন এবং এই কোর্স চলাকালিন সময় পর্যটন থেকেই Food Hyghine And Sanytation কোর্স করেন। খুব অল্প সময়ের সিদ্ধান্তে রোকসানা NHTTI থেকে কোর্সটি সম্পন্ন করেন এবং নিজেই নিজের কোর্স ফি জোগাড় করেন পরিবারের হেল্প ছাড়া। পরিবার হেল্প করতে চাইলেও নেননি সেই সময় কারন তিনি বিশ্বাস করেন নিজের অর্জিত জিনিসের প্রতি সবারই আলাদা একটা মায়া থাকে এবং দায়িত্ব বোধটিও জাগ্রত হয়। কোর্স শেষে ঢাকা শহরের সুনামধন্য একটি ফাইভস্টার হোটেল থেকে ইন্টার্নী সম্পূর্ণ করেন।

তারপর একটি ফোর স্টার হোটেলে জব করেন এক বছরের মতো । জব করা কালিন সময় অনেক সমস্যার সম্মুখীন হন সেই মুহুর্তে তিনি উদ্যোক্তা জিবনকে খুব মিস করেন। তারপর আবার সিদ্ধান্ত নেন উদ্যোক্তা জীবনেই ফিরে আসবেন এবং যথারিতি জব ছেড়ে দেন। এর মাঝে বিভিন্ন রান্নার প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহন করেন। এখন আবার নতুন করে পুরো উদ্যম নিয়ে Dream Food station পরিচালনা করছেন। রোকসানার পরিবার তাকে সব সময় সাপোর্ট করে যাচ্ছেন, বিশেষ করে তার মা যেমনি পাশে থেকে সাহস যোগান তেমনি বিভিন্ন কাজে সহযোগিতা করেন । বর্তমানে রান্না নেশা ও পেশায় পরিনত হয়েছে। আমাদের সমাজের প্রেক্ষাপটে একজন নারী হিসেবে এই সুদীর্ঘ পথ পাড়ি দেয়া খুবই কস্ট সাধ্য আবার অসাধ্যের ও কিছু নয়। রোকসানা সবার দোয়া চায়।

‘দি ট্যুরিজম ভয়েস’ রোকসানা কবির এর উত্তরোত্তর মঙ্গল কামনা করে এবং ভবিষ্যতে রোকসানার যে কোন কাজের পাশে থাকার প্রাণান্তর চেষ্টা করে তার সোনালী স্বপ্নকে দেশে বিদেশে ছড়িয়ে দিতে সর্বদা সহযোগিতা করার আশ্বাস দিচ্ছে। রোকসানার এর এই এগিয়ে চলার ও সাফল্যের গল্প অনুপ্রেরণা হয়ে পুষ্পিত পল্লবের মত ছড়িয়ে পড়ুক সহস্র নারীর মাঝে।