পর্যটনে নারী উদ্যোক্তা কবি, গীতিকার, শিল্পী মোহিনী

0
287

ভুমিকাঃ ‘দি ট্যুরিজম ভয়েস’ পত্রিকা সব সময় পর্যটন শিল্পের উন্নয়নে এবং শিল্পের সাথে যুক্ত কিছু ব্যতিক্রমী মানুষকে তুলে ধরার প্রানান্তর চেষ্টা করে, এবং সেই মানুষ গুলোর পর্যটন কর্মী হয়ে ওঠার লড়াই কে সম্মান জানিয়ে তাদের পাশে থাকার চেষ্টা করে। আজ তুলে ধরবো তেমনি একজন পর্যটন লেখক, কবি, গীতিকা্ সুরকার, শিল্পী, সাংবাদিক ও পর্যটন উদ্যোক্তা কাজী মোহিনী ইসলাম এর পথচলার গল্প।

সম্মিলিত পর্যটন জোট, পর্যটন সমবায় সমিতি লিমিটেড এবং মাই টিভি’র পর্যটন বিষয়ক অনুষ্ঠান ‘মাই ট্যুরিজম’ এর থিম সং রচনা, সুরারোপ ও কণ্ঠদান করা কাজী মোহিনী ইসলাম একজন সব্যসাচী লেখক, কবি, গীতিকার, সুরকার, সাংবাদিক, সংগঠক ও পর্যটন খাতের নারী উদ্যোক্তা। কবিতা, গল্প, উপন্যাস, নাটক, কিশোর কবিতা, ছড়া, গান রচনা, সুরারোপ করা, প্রবন্ধ-নিবন্ধ, সাহিত্য সমালোচনাসহ সাহিত্যের প্রায় সব শাখায় তার অবাধ বিচরণ রয়েছে।

কাজী মোহিনী ইসলামের লেখার একটি উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট হচ্ছে, তিনি অত্যন্ত সাবলীলভাবে প্রকৃতি ও মানব জীবনের বৈচিত্র সব চরিত্রকে সুনিপুণভাবে চিত্রায়ণে সক্ষম; ভাষা ও প্রকরণে তার নৈপূণ্য উল্লেখ করার মতো। তিনি প্রকৃতি ও মানুষের অন্তর্লোকের সমস্ত আবেগ-অনুভূতি, ভাবনা ও ব্যাকুলতার নির্যাস তুলে আনেন মনোগ্রাহী বিশ্লেষণের মধ্য দিয়ে। তার লেখার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য দিক হচ্ছে, স্বতন্ত্র নির্মাণশৈলী ও সুষমামণ্ডিত কাব্যভাষা। সুনির্বাচিত শব্দ প্রয়োগ, উপমা-উৎপ্রেক্ষা ও চিত্রকল্পের বহুবিচিত্র ব্যবহার তার লেখাকে চিত্তাকর্ষক ও মোহনীয় করে তোলে।

কাজী মোহিনী ইসলামের লেখালেখির হাতেখড়ি কৈশর থেকেই। তার ছোটদের উপযোগি প্রকাশিত বইগুলো হচ্ছে, ‘পুতুল বউ’ (কিশোর কবিতা), ‘জ্যোৎস্না কুড়াই জোনাক বনে’ (কিশোর কবিতা), ‘বাবার উপহার’ (মুক্তিযুদ্ধের কিশোর উপন্যাস), ‘কোকিল ও কৃষ্ণচূড়ার গল্প’ (শিশু-কিশোর গল্পের বই), হাতের মুঠোয় রোদ নিয়েছি (কিশোর কবিতার বই), পিপীলিকার আকাশভ্রমণ (শিশু-কিশোর গল্পের বই), ছড়ায় ছন্দে ছয়ঋতু (শিশু-কিশোর ছড়ার বই), হরেক রকম পেশা (ছোটদের ছড়ার বই)।

বড়দের জন্য রচিত বইয়ের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে, ‘অহনার চিঠি’ (উপন্যাস), ‘স্বপ্নগ্রস্ত মন’ (কাব্যগ্রন্থ), ‘হৃদয়ের ভাঁজে নকশিবোনা মুখ’ (কাব্যগ্রন্থ), ‘কিছু মৌনতা কিংবদন্তি হয়ে ওঠে’ (কাব্যগ্রন্থ), এবং ‘প্রলোভনের পোষ্টারে ঢাকা নাগরিক দেয়াল’ (কাব্যগ্রন্থ)।

কাজী মোহিনী ইসলামের জন্ম ১৪ অক্টোবর, ১৯৮০, চট্টগ্রামে। পিতা মরহুম মির্জা শফিকুল ইসলাম। মাতা ফাতেমা বেগম। কাজী মোহিনী ইসলাম পেশায় একজন সাংবাদিক; পর্যটন বিষয়ক ইংরেজী সাপ্তাহিক পত্রিকা উইকলি ‘দি ম্যাসেজ বাংলাদেশ’-এর অন্যতম উদ্যোক্তা ও যুগ্ম সম্পাদক। তিনি পর্যটন সমবায় সমিতি লিমিটেড-এর সদস্য। অনলাইন চ্যানেল ‘এবং টেলিভিশন’-এর সহকারী পরিচালক। এছাড়া তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশনের তালিকাভুক্ত গীতিকার।

লেখালেখির পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত থেকে তিনি দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন। তিনি বিবাহিতা। স্বামী কাজী রহিম শাহরিয়ার একজন কবি, গীতিকার ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব। দুই সন্তান কাজী ফয়সাল মাহমুদ ও কাজী তাহিয়া তাবাস্সুম (মুন্তাহা)কে নিয়ে তাঁর সুখের সংসার। মোহিনী সম্প্রতি বান্দারবানে সাঙ্গু নদীর রিসোর্ট নির্মাণের জন্য জমি প্রস্তুত করেছেন। করোনার সারাদেশ স্থবির হওয়ার কারনে কাজ শুরু করতে পারেন নি।

‘দি ট্যুরিজম ভয়েস’ কাজী মোহিনী ইসলাম এর উত্তরোত্তর মঙ্গল কামনা করে এবং ভবিষ্যতে তমার যে কোন কাজের পাশে থাকার প্রাণান্তর চেষ্টা করে তার সোনালী স্বপ্নকে দেশে-বিদেশে ছড়িয়ে দিতে সর্বদা সহযোগিতা করার আশ্বাস দিচ্ছে। মোহিনীর এই এগিয়ে চলার ও সাফল্যের গল্প অনুপ্রেরণা হয়ে পুষ্পিত পল্লবের মত ছড়িয়ে পড়ুক সহস্র নারীর মাঝে।